জাতিসংঘের মানব উন্নয়ন প্রতিবেদন ঃ নারী পুরুষের ব্যাবধান কমেছে বাংলাদেশে

--- নিবন্ধ ভাল লাগলে লাইক দিতে ভুলবেন না ---

ইউএনডিপি বলছে, নারী-পুরুষের মধ্যে বৈষম্য কমে আসার প্রধান কারণ হলো বাংলাদেশ মাতৃমৃত্যুর হার ব্যাপকভাবে কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে।জাতিসংঘের মানব উন্নয়ন প্রতিবেদনে ১৮৭টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪৬ নম্বরে । তবে এই প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, নারী-পুরুষের বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রে দেশটি বড়ো ধরনের অগ্রগতি অর্জন করেছে .

ঢাকায় ইউএনডিপির কর্মকর্তা এ কে এম মোর্শেদ বলছেন, এমন অবস্থাতেও এবারে বাংলাদেশের অর্জন হলো নারী-পুরুষের বৈষম্য কমিয়ে আনা।

গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ মাতৃমৃত্যুর হার ২৫ শতাংশ কমিয়ে এনেছে। নারী-পুরুষের সমতা অর্জনের ক্ষেত্রে এটি একটি বড় মাপকাঠি

এ কে এম মোর্শেদ, ইউএনডিপি

তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ মাতৃমৃত্যুর হার ২৫ শতাংশ কমিয়ে এনেছে। ইউএনডিপি বলছে, নারী-পুরুষের সমতা অর্জনের ক্ষেত্রে এটি একটি বড় মাপকাঠি।

মানব উন্নয়ন প্রতিবেদনে ইউএনডিপি প্রধানত তিনটি বিষয়কে গুরুত্ব দেয়। এগুলো হচ্ছে: শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং মানুষের আয়।

ইউএনডিপির প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে, বাংলাদেশের চারভাগের একভাগ মানুষ এখনও চরম দরিদ্র।

ইউএনডিপির কর্মকর্তা মি: মোরশেদ বলেন, বাংলাদেশের দারিদ্রের অবস্থা নিয়ে সর্বশেষ পরিসংখ্যান এ প্রতিবেদনে যুক্ত হয়নি।

তিনি বলেন, সর্বশেষ প্রকাশিত প্রতিবেদনে বাংলাদেশের দারিদ্র পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে।

বাংলাদেশের ২৬ শতাংশ মানুষ এখনও চরম দারিদ্রের মধ্যে রসবাস করছে
--- নিবন্ধ ভাল লাগলে লাইক দিতে ভুলবেন না ---
---------------------

বাংলাদেশের ২৬ শতাংশ মানুষ এখনও চরম দারিদ্রের মধ্যে রসবাস করছে

বাংলাদেশে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সংখ্যা ৪০ শতাংশ৻ এই পরিসংখ্যান যুক্ত হলে বাংলাদেশের অবস্থান আরও ভালো হতো বলে উল্লেখ করেন মি: মোরশেদ।

ইউএনডিপির সার্বিক সূচকে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশ যেমন – শ্রীলংকা, ভারত, ভুটান এবং পাকিস্তানের চেয়ে কিছুটা পিছিয়ে আছে।

যদিও কোনো কোনো ক্ষেত্রে এ দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশের অগ্রগতি ভালো, যার একটি হলো নারীর প্রতি বৈষম্য কমিয়ে আনা।


--- নিবন্ধ ভাল লাগলে লাইক দিতে ভুলবেন না ---
  •   
  •