.

যৌথ বাণিজ্য কমিশন গঠন করবে ঢাকা ও বুদাপেস্ট

ঢাকা, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ (বাসস) : ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনীতি ও অন্যান্য অগ্রাধিকার ক্ষেত্রগুলোতে সহযোগিতার সুযোগ খুঁজতে ঢাকা ও বুদাপেস্ট একটি যৌথ বাণিজ্য কমিশন (জেটিসি) গঠন করবে।
এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশের বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি ও হাঙ্গেরির পররাষ্ট্র ও বাণিজ্য মন্ত্রী পিটার সিজার্তো আজ রাজধানীর বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে এক দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে একথা জানান।
বৈঠকে তাদের মধ্যে দু’দেশের ব্যবসা, বাণিজ্য ও বিনিয়োগসহ বিভিন্ন দ্বিপক্ষীয় ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়।
টিপু মুনশি বলেছেন, বাংলাদেশে বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগের সুযোগ গ্রহণ করলে হাঙ্গেরি লাভবান হবে। উভয় দেশের মধ্যে একটি জয়েন্ট ট্রেড কমিশন গঠনের মাধমে বাণিজ্য ও বিনিয়োগের খাতগুলো চিহ্নিত করা সহজ হবে। এ ব্যাপারে জয়েন্ট ট্রেড কমিশন করতে আগ্রহী হাঙ্গেরি।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, দু’দেশের মধ্যে একটি যৌথ ট্রেড কমিশনের তথ্যেও ফলে বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সুযোগ চিহ্নিত করতে সহজ হবে।
তিনি আরো বলেন, ‘অ্যাগ্রোফুড প্রসেসিং, বিশুদ্ধপানি ব্যবস্থাপনা এবং ওষুধ শিল্প খাতে হাঙ্গেরির বিনিয়োগকে বাংলাদেশ স্বাগত জানাবে। এছাড়া, আইসিটি, সেবা খাতে বিনিয়োগের প্রচুর সুযোগ রয়েছে।’
টিপু বলেন, হাঙ্গেরির সাথে বাংলাদেশের দীর্ঘ বাণিজ্যিক সম্পর্ক রয়েছে এবং দুদেশের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধিও প্রচুর সম্ভাবনা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় দেশের বিভিন্ন স্থানে ১শ’টি বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে।
তিনি বলেন, এছাড়াও জাপান, ভারত, চীন, কোরিয়া ও অন্যান্য দেশ আমাদের দেশে বিনিয়োগে আগ্রহী। পরিবর্তিত বৈশ্বিক বাণিজ্যিক পরিস্থিতিতে যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানসহ অনেক দেশ বাংলাদেশে তাদের কারখানা স্থাপন করতে চাইছে।
মন্ত্রী বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এখন বাংলাদেশকে বিনিয়োগের জন্য উপযুক্ত মনে করছে।
হাঙ্গেরির পররাষ্ট্র ও বাণিজ্যমন্ত্রী পিটার সিজিজারটো বলেন, ‘হাঙ্গেরির ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে বাণিজ্য বাড়াতে আগ্রহী। এজন্য একটি যৌথ বাণিজ্য কমিশন গঠন করা যেতে পারে। বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে হাঙ্গেরি অ্যাগ্রোফুড প্রসেসিং ইন্ডাস্ট্রিসহ বাংলাদেশের বিশুদ্ধপানি ব্যবস্থাপনা ও ওষুধ শিল্পখাতে বিনিয়োগে আগ্রহী। বাংলাদেশের কৃষিভিত্তিক ইন্ডাস্ট্রিতে আধুনিক প্রযুক্তি ও মেশিনারিজ সরবরাহ করার সুযোগ রয়েছে। বাংলাদেশে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সুযোগ-সুবিধা আকর্ষণীয়। হাঙ্গেরি এসব সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করতে চায়।’