.

কোভিড-১৯ থেকে প্রকৃতি-বান্ধব পুনরুদ্ধার অর্জনে এডিবি’র গুরুত্বারোপ

ঢাকা, ৭ নভেম্বর, ২০২০ (বাসস) : এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ভাইস-প্রেসিডেন্ট (অপারেশন ২) আহমেদ এম. সাঈদ বলেছেন, করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারীর প্রেক্ষিতে প্রকৃতি-ইতিবাচক পুনরুদ্ধার অর্জনের জন্য সরকার, উন্নয়ন সংস্থা এবং বেসরকারী খাতকে একযোগে কাজ করতে হবে।
গতকাল ‘অর্থায়ন প্রকৃতি ও বৈচিত্র্য’ শীর্ষক এক ওয়েবিনার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সাঈদ বলেন, আমাদের বিশেষ করে কোভিড-১৯ মহামারীর পর থেকে সবারই বোঝা উচিত ছিল যে, আমরা পৃথকভাবে আর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং পরিবেশগত চাপ মোকাবেলা করতে পারবো না। তাই প্রকৃতি-বান্ধব পুনরুদ্ধার অর্জনের জন্য এই চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলা করতে সরকার এবং ব্যবসায়ীদের একসঙ্গে কাজ করা দরকার।
এডিবি’র এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বক্তারা জেনেছেন যে কিভাবে এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলো তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন বজায় রাখার জন্য তাদের প্রাকৃতিক পুঁজির উপর যেমন বন, সংরক্ষিত এলাকা, কৃষিজমি, জ্বালানি এবং খনিজসহ প্রাকৃতিক সম্পদের উপর নির্ভরশীল, যা গড়ে ৩০ শতাংশ দেশের সম্পদ।
প্রাকৃতিক মূলধন থেকে কর্মসংস্থান এবং উপার্জনও লক্ষণীয়। এর মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ চাকরি ও জীবিকা নির্বাহের ব্যবস্থা হয়। এই অঞ্চলে প্রায় ৩৮০ মিলিয়ন ক্ষুদ্র খামার প্রায় ৮০ শতাংশ খাদ্য সরবরাহ করে।
কিন্তু, এশিয়া এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে তীব্র প্রাকৃতিক মূলধন পতন, জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি, ভূমি ব্যবহার পরিবর্তন, প্রাকৃতিক সম্পদ অতিরিক্ত শোষণ এবং দূষণের সম্মুখীন হচ্ছে। এই ভারসাম্যহীনতার প্রতিকার ও প্রকৃতি-বান্ধব পদ্ধতির প্রচারের জন্য এডিবি একটি প্রাকৃতিক মূলধন ল্যাব প্রতিষ্ঠা করছে, যা মূলত চারটি ক্ষেত্রে কাজ করবে। প্রথমত, জ্ঞান আদান-প্রদানের মাধ্যমে এটি পরিবেশ রক্ষা ব্যবস্থার সেবার মান ধারণ করতে ইতোমধ্যে বিদ্যমান কিছু পদ্ধতিকে কাজে লাগাবে। সেখানে ল্যাব এমন একটি প্ল্যাটফর্ম হবে, যেখানে বিদ্যমান পদ্ধতি শেখা যাবে এবং ল্যাব ব্যবহারে থাকবে উন্মুক্ত প্রবেশাধিকার।
দ্বিতীয়ত, প্রকৃতি-বন্ধব বিনিয়োগকে উৎসাহিত করতে এবং পরিবেশের অবনতির নেতৃত্বে থাকা কার্যকলাপকে নিরুৎসাহিত করতে নীতিগত, পদ্ধতিগত, প্রাতিষ্ঠানিক এবং নিয়ন্ত্রক কাঠামো বিনিময়ের জন্য ল্যাব একটি কেন্দ্র হবে।
তৃতীয়ত, ঋণ এবং বিনিয়োগের সিদ্ধান্তে পরিবেশগত, টেকসই এবং প্রশাসন মানদন্ডকে উন্নীত করার লক্ষ্যে বেসরকারি খাতের মাধ্যমে টেকসই অর্থকে ত্বরান্বিত করবে এই গবেষণাগার।
চতুর্থত, প্রাকৃতিক ক্যাপিটাল ল্যাব সেক্টর এবং অঞ্চল জুড়ে জ্ঞান আদানপ্রদান করার জন্য অংশীদারিত্ব গড়ে তুলবে।
২০২১ সালের মে মাসে কুমিংয়ে জীববৈচিত্র্য বিষয়ক সম্মেলনের (কোপ-১৫) জন্য পরিকল্পিত প্রাকৃতিক রাজধানী ল্যাব আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের প্রস্তুতি হিসেবে এখন থেকে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারির মধ্যে অনুষ্ঠিত তিনটি ওয়েবিনারের এটি ছিল প্রথম। ইভেন্টটি প্রাকৃতিক মূলধন বিনিয়োগের জন্য ব্যক্তিগত মূলধনকে একত্রিত করতে বহুপাক্ষিক উন্নয়ন ব্যাংক, সরকার এবং উন্নয়ন অংশীদারদের ভূমিকা পরীক্ষা করে।
এডিবি ছাড়াও বক্তাদের মধ্যে চীনের জাতীয় উন্নয়ন ও সংস্কার কমিশন, স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়, পরিবেশ পরিকল্পনা সম্পর্কিত চীনা একাডেমি, বিশ্বব্যাংক, আন্তঃআমেরিকান উন্নয়ন ব্যাংক, আন্তর্জাতিক অর্থ সংস্থা, গ্লোবাল এনভায়রনমেন্ট ফ্যাসিলিটি এবং বেসরকারী খাতের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।

Go to Source
November 8, 2020
5:01 AM